আপনি যখন কোথাও ঘোরার জন্য প্লান করবেন বিশেষ করে স্পিটি ভ্যালি তখন এই প্রশ্নটি মনের মধ্যে আসতে বাধ্য যেমন স্পিটি ভ্যালি ঘোরার জন্য কখন বেস্ট? এটা এমন কোন বিষয় নয় যে সাপ্তাহিক ছুটি পেলেন আর ঘুর চলে আসলেন বা এক সপ্তাহের জন্য বের হয়েছেন এবং ঘোরা শেষ। এখানে যেতে হলে আপনাকে নিখুঁত ভাবে একটি ট্যুর প্লান করতে হবে কারণ এখানে টাকার বিষয়ও জড়িত। আপনি যখন বুঝতে পারবেন যে স্পিটি ভ্যালি ঘোরার জন্য কোন সময়টা বেস্ট তখন আপনার ভ্রমণ হবে আরামদায়ক, নিরাপদ এবং হ্যাসেল ছাড়াই ঘুরে আসতে পারবেন।আশা করছি এই আর্টিকেলটি পড়ার পর আপনি জেনে যাবেন কোন সময় আপনার জন্য বেস্ট বা স্পিটি ভ্যালির জন্য বেস্ট সিজন।

কিছু মানুষ গ্রীষ্ম কালে স্পিটি ভ্যালি ঘুরতে পছন্দ করেন আবার কিছু ভ্রমণকারী আছেন তারা প্রচন্ড শীতের সময় ঘুরতে পছন্দ করেন। মূলত স্পিটি ভ্যালি রাস্তা সারা বছরই খোলা থাকে। বেস্ট সময় নির্ভর করছে আপনার উপর কারণ আপনি কোন সময়ে ঘুরতে পছন্দ করেন এবং কিভাবে ট্যুর প্লান করেছেন তার উপর মূলত নির্ভর করছে। আপনি কিভাবে যেতে চান, কেমন খরচ করতে চান এটাও একটা ফ্যাক্টর হয়ে থাকে। তবে অধিকাংশ তার নিজের মতো করে সময় বের করে ট্যুর প্লান করতে পছন্দ করেন। আমি এই আর্টিকেলে প্রতি মাসে ঘোরার বিষয়টি তুলে ধরার চেস্টা করবো এবং এটি জানার পর নিজেই বুঝে যাবেন আপনার জন্য কোন মাস ভ্রমণের জন্য বেস্ট হবে।

এই ভ্রমণে অধিকাংশ Lahaul এবং স্পিটি ভ্যালি কভারড করার চেস্টা করে অর্থাৎ আপনি শুরু করবেন এক পয়েন্ট দিয়ে এবং ভ্রমণ শেষ করবেন অন্য রুট দিয়ে। মূলত পুরো ভ্রমণ চক্রটি শেষ করতে শিমলা ও মানালি সাইড ব্যবহার করতে হবে। তারমানে আপনি এই দুই সাইডের যে কোন এরিয়া দিয়ে শুরু করতে পারেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক——

শিমলা সাইড দিয়ে

Shimla – Narkanda – Rampur – Jeori – Reckong Peo – Nako – Tabo – Dhankar – Kaza

মানালি সাইড দিয়ে

Manali – Rohtang Pass – Gramphoo – Batal – Losar – Kaza

স্পিটি ভ্যালি যাওয়ার জন্য শিমলা সাইড দিয়ে সারা বছর খোলা থাকে যেখানে মানালি সাইড দিয়ে মাত্র ৪ মাসের মতো খোলা থাকে যা জুন থেকে সেপ্টেম্বর লাস্ট পর্যন্ত। আপনি যদি জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাসের যে কোন সময়ে ট্যুর প্লান করেন তাহলে পুরো চক্র ঘুরে মানালি সাইড দিয়ে বের হতে পারবেন। অক্টোবর থেকে মে মাসের মধ্যে যদি ঘুরতে চান তাহলে অবশ্যই শিমলা সাইড দিয়ে কাজা (Kaza) পর্যন্ত যেতে পারবেন এবং একই পথে আবার ব্যাক করতে হবে কারণ শিমলা টু কাজার মধ্যে তেমন উচু কোন হিল পাসিং সাইড নেই যেটা মানালি সাইডে থাকে তাই শিমলা সাইড দিয়ে যাতায়াত করা যায় যেহেতু বরফ গলে রাস্তা নস্ট হওয়ার তেমন সুযোগ নেই বা তেমন পাথরধস হতে দেখা যায় না কিন্তু মানালি সাইড দিয়ে এধরনের ঘটনা হরহামেশাই ঘটে বলে পুরো রাস্তা বন্ধ থাকে। তাই মানালি সাইড দিয়ে জুন মাস থেকে যাতায়াত করা সম্ভব হয়। তবে মানালি সাইড দিয়ে অক্টোবর মাসের ২য় সপ্তাহ পর্যন্ত রাস্তা চালু থাকে যদি স্নোফল কিছুটা কম হয়ে থাকে, এটা আবহাওয়ার উপর নির্ভর করে। তাই অক্টোবর মাসে সাধারণত কেউ রিস্ক নিয়ে ওই পথ দিয়ে যাতায়াত করে না।

শীতের সময় অর্থাৎ অক্টোবর বা নভেম্বর মাসে কেউ যদি শিমলা সাইড দিতে স্পিটি ভ্যালি যেতে চাইলেও সেটা যথেস্ট কঠিন কারণ রাস্তা ও আশেপাশে বরফ জমে রাস্তার অবস্থা বাজে হয়ে যায় তাই রোড দিয়ে যেতে হলে অনেক সতর্ক হয়ে যেতে হবে যেটা হয়তো কিছুটা চ্যালেঞ্জিং।উপরে উল্লেখ করেছি কোন সময় স্পিটি ভ্যালির জন্য বেস্ট, তারপরও কারো জন্য বরফ সিজন পছন্দ হয় তাহলে আপনি শিমলা সাইড দিয়ে জানুয়ারি বা ফেব্রুয়ারী মাসে যেতে পারেন কারণ আশেপাশের সবকিছু একদম বরফে আচ্ছান্ন থাকে তবে অবশ্যই হোটেল মালিকের সাথে যোগাযোগ করে যেতে হবে কারণ অক্টোবর মাস থেকেই সমস্ত হোটেল, গেস্ট হাউজ বন্ধ হয়ে যায়। যোগাযোগ ছাড়া গেলে অবশ্যই সেটা বোকামি ছাড়া আর কিছুই নয়। আর যদি বরফ সিজন ভালো না লাগে তাহলে অবশ্যই জুলাই মাস বা সেপ্টেম্বর মাস আমার কাছে বেস্ট মনে হয়েছে তাই এই সময়ে ঘুরে আসতে পারেন, অস্থির আবহাওয়া।

জানুয়ারি মাসের স্পিটি ভ্যালি

একদম খারাপ সময় নয় কারণ যারা আ্যডভেঞ্চার ও বরফ পছন্দ করে তাদের জন্য বেশ ভালো সময়। এসময় শিমলা সাইড থেকে কাজা পর্যন্ত বরফে আচ্ছান্ন থাকে, অন্যরকম এক পরিবেশ, দেখে মনে হবে বরফের মরুভূমিতে এসে গেছেন। যে দিকে তাকাবেন সাদা ছাড়া আর কিছুই দেখবেন না, এমনকি গাছের পাতা, ডাল পর্যন্ত বরফে ঢাকা থাকে। এসময়ে হেভি স্নোফলের কারণে রাস্তা বন্ধ হয়ে যায় এবং এ সময় হোটেল, গেস্ট হাউস বন্ধ থাকে। অবশ্যই আগে থেকে যোগাযোগ করে এসময়ে যাবেন নতুবা যে বাসে গেছেন সেই বাসে আবার ব্যাক করা লাগবে অর্থাৎ শুধু যাওয়া আসার অভিজ্ঞতা ছাড়া আর কোন অভিজ্ঞতা পাবেন না, তবে এটাই অনেকের কাছে অনেক কিছু।

ফেব্রুয়ারী ও মার্চ মাসের স্পিটি ভ্যালি

যদিও এসময় সম্পূর্ণ স্নোফলের সময় এবং ফেব্রুয়ারীর মাঝামাঝি সময় থেকে মার্চ পর্যন্ত বরফে আচ্ছান্ন থাকে যেমন শিমলা, কুফরি, নারকান্দা, শাংলা এবং কাজা। অবশ্যই সতর্কতার সাথে ট্যুর প্লান করতে হবে কারণ এই সময়ে ওখানে কোন হোটেল, গেস্ট হাউস খোলা থাকে না এবং কোন বাসও তেমন যাতায়াত করে না তবে প্রাইভেট কার হায়ার করে নিয়ে যেতে হবে আর বাস যদিও বা যায় সেটা খোজ নিয়ে দেখতে হবে কবে বাস যাবে।

এপ্রিল ও মে মাসের স্পিটি ভ্যালি

মার্চ মাসের শেষ দিকে রাস্তা ঘাটে জমে থাকা বরফ, গাছের উপর বরফ, পাহাড়ের সাথে জমে থাকা বরফ, ঘরের চালের উপর বরফ গলতে শুরু করে এবং এপ্রিল মাসের শুরুতে একদম গলা শুরু করে যার কারণে কিছু হোটেল মালিক হোটেল খুলতে শুরু করে সেই সাথে গেস্ট হাউজ তবে এটার পরিমান খুবই কম। এসময়ে অল্প কিছু ট্যুরিস্ট যাতায়াত করে এবং ভীড় তেমন নাই বললেই চলে। তবে গন্তব্য কাযা পর্যন্ত অর্থাৎ এর থেকে বেশি দূরে যেতে পারে না। রাস্তা ঘাটের অবস্থা খুবই বাজে থাকে এবং বরফের পানি আর রাস্তার ধুলা মিশে কালো কুচ কুচে হয়ে যায়, বাস বা কার খুব সাবধানে চালাতে হয়। এসময় সাধারণত কেউ মটরবাইক নিয়ে ট্যুর দেয়না।

জুন টু সেপ্টেম্বর মাসের স্পিটি ভ্যালি

এই সময়ে পুরো চক্রা আকারে ঘুরতে পারবেন অর্থাৎ কোন বরফ থাকে না, একদম নিট এ্যান্ড ক্লিন থাকে রাস্তা ঘাট, অন্যরকম পরিবেশ। এই সময়ে আপনি শিমলা ও মানালি সাইড দিয়ে যেতে পারবেন, কোন সমস্যা নেই কারণ মানালি সাইড জুন মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে বাস যাতায়াত শুরু হয়।

তবে বৃষ্টির সিজনে মাঝে মাঝে পাহাড় ধস হয়ে থাকে যার কারণে অনেক সময় মানালি সাইডের রাস্তা বন্ধ থাকে তবে তা সাময়িক কারণ মানালির অথোরিটি রাস্তা দ্রুত পরিস্কার করে দেয় যাতে সাধারণ মানুষ যাতায়াত করতে পারে। অনেক সময় পাহাড় ধসের পরিমাণ বেশি হলে সেক্ষেত্রে ২/৩ দিন রাস্তা অফ থাকতে পারে। এক্ষেত্রে উচু হিল কুনজম পাস জুনের শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত অফ থাকে পাহাড় ধসের কারণে তবে বিকল্প হিসেবে Kokhsar রোড টি খোলা থাকে যা কাজা পর্যন্ত গিয়ে থাকে।

অপরদিকে শিমলা সাইড দিয়ে অনায়াসে যেতে পারবেন কারণ এরকম পাহাড় ধস হওয়ার সম্ভবনা খুবই কম তবে মানালির তুলনায় শিমলা সাইডের রাস্তা একটু খারাপ আছে তবে সেটার পরিমান মাঝামাঝি পথ যাওয়ার পর থেকে। তবে যাইহোক না কেন এই সময়ে পুরো ভ্রমণ শেষ করতে পারবেন ইনশাআল্লাহ। এই সময়ে চন্দরতল লেক খোলা থাকে তাই আপনার ভ্রমণ প্লানের সাথে এটিও আ্যড করে রাখতে পারেন। অসাধারণ এক লেক, এটি দেখতে মোটেও মিস করা উচিত নয়। এই সময়ে হোটেলগুলো পুরোদমে চালু থাকে এবং রুম পাওয়া খুব সহজে ব্যাপার। শিমলা সাইড দিয়ে যাওয়ার সময় কিন্নোর জেলা বাধে, এই এরিয়াতে বৃষ্টির সিজন শুরু হয়ে থাকে জুলাই মাসের শেষ দিকে, এসময় কিছুটা পাহাড় ধস হতে পারে সেই সাথে রাস্তাও চরম খারাপ থাকে। আপনি যখন প্লান করবেন এই সময়ে যাওয়ার জন্য, অন্তত কয়েকটা দিন পরে যাওয়ার প্লান করুন অর্থাৎ আগস্টের প্রথম সপ্তাহ থেকে শুরু করতে পারেন।

সেপ্টেম্বর মাসে কোন বৃষ্টি হয়না, সেজন্য এই মাসটি ব্যক্তিগতভাবে আমার কাছে বেস্ট মনে হয় তাছাড়া তখন উচু হিল রোথাং পাস ও কুঞ্জুম পাস খোলা থাকে তাই অনায়াসে কোন ঝামেলা ছাড়া পুরো ভ্রমণটি সুন্দরভাবে সম্পন্ন করতে সক্ষম হবেন ইনশাআল্লাহ।তবে সেপ্টেম্বর মাসের ২য় সপ্তাহ থেকে বাতাসে যথেস্ট ঠান্ডা থাকে অর্থাৎ ৫ থেকে ১৫ ডিগ্রী সে, এজন্য সাথে জ্যাকেট বা জাম্পার, মাফলার ও টুপি সাথে রাখা খুবই জরুরী, তা না হলে ঠান্ডা লেগে যাবে নিশ্চিত।

অক্টোবর টু ডিসেম্বর মাসের স্পিটি ভ্যালি

এই সময়ে একটা সাইড দিয়ে স্পিটি ভ্যালি ভ্রমণ করতে পারবেন কারণ উচু হিল কুঞ্জুম পাস বরফের কারণে বন্ধ থাকে। শিমলা সাইড দিয়ে যাতায়াত করতে হবে এবং কাযা পর্যন্ত গিয়ে আবার একই পথে রিটার্ন করতে হবে তবে রাস্তা কিছুটা খারাপ থাকে যেহেতু বরফে আচ্ছান্ন থাকে। এসময় হাতে গোনা কয়েকটা হোটেল, গেস্ট হাউস খোলা থাকে তবে যাওয়ার আগে যোগাযোগ করে যাওয়া উচিত।

আপনি স্নোফল দেখতে পারবেন কারণ ডিসেম্বর মাসের শুরুর দিকে প্রচুর পরিমানে স্নোফল হয়ে থাকে। তবে যারা ঠান্ডা সহ্য করতে পারেন না, বা ঠান্ডায় সমসশা হয়ে থাকে তাদের এই সময়ে স্পিটি ভ্যালি না যাওয়াই উত্তম।

স্পিটি ভ্যালি রোড দিয়ে যেতে কোন সময় বেস্ট

অবশ্যই জুন মাস থেকে সেপ্টেম্বর মাস হচ্ছে ভালো সময় কারণ এই সময় উভয় পাশ দিয়ে রোড খোলা। এমনকি চন্দরাতল লেকও খোলা থাকে তাই এই সময়ে নিশ্চিন্ত মনে যেতে পারেন। এই বিষয়ে বিস্তারিত উপরে বিভিন্ন ভাবে জানিয়েছি, একটু চোখ বুকিয়ে নিন প্লিজ।

#স্পিটি ভ্যালিতে ফটোগ্রাফির জন্য কোন সময় বেস্ট?

এটাতো সম্পূর্ণ আপনার উপর নির্ভর করবে কারণ আপনি কি টাইপের ছবি তুলতে চাচ্ছেন। আপনি যদি বরফের ছবি তুলতে চান তাহলে জানুয়ারি/ফেব্রুয়ারী যে কোন মাসে গিয়ে ইচ্ছামতো ঘরের চালের, গাছের, রাস্তার বরফময় ছবি তুলতে পারবেন। আপনি যদি চরম সবুজ পাহাড়ের ছবি তুলতে চান তাহলে আগস্ট মাস আপনার জন্য বেস্ট, এসময়ে স্পিটি ভ্যালির পরিবেশ দেখে আপনার মনে নেশা ধরে যাবে, থেকে যেতে মন চাইবে। আপনি যদি শরৎ কালের রং দেখতে চান তাহলে সেপ্টেম্বর মাসের শেষ দিকে যেতে পারেন কারণ এই সময়ে অস্থির প্রকৃতি।

কোন সময়ে কম খরচে ঘুরতে পারবেন?

অবশ্যই জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে যেতে পারেন কারণ এই সময়ে লোকাল বাস এভেইলাবেল চলাচল করে সেটা শিমলা বা মানালি যে সাইড দিয়েই যাতায়াত করেন না কেন। এসময়ে সমস্ত হোটেল খোলা থাকে এবং অল্প টাকার মধ্যে হোটেল পেয়ে যাবেন। একদম পিক সিজন তাই সব কিছু সহজে পেয়ে যাবেন।

উপরের তথ্যগুলো পড়ার পর স্পিটি ভ্যালি সম্পর্কে আপনি যথেষ্ট ধারণা পাবেন এবং সিদ্ধান্ত নিতে সুবিধা হবে। এই সম্পর্কে আরো তথ্য জানার প্রয়োজন হলে কমেন্টস করুন, দ্রুত রিপ্লাই দেওয়ার চেস্টা করবো।

লেখাঃ শেখ আব্দুর রহমান

ভ্রমণ হবে সহজে

"পরবর্তীতে পড়ার জন্য শেয়ার করে রাখুন"